১৫টিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ লাইসেন্সবিহীন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাচ্ছে সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ

প্রকাশিত: ৫:০৫ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০২০

১৫টিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ লাইসেন্সবিহীন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাচ্ছে সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ

সিলেটে লাইসেন্সবিহীন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু হচ্ছে। এরই মধ্যে এ ধরনের ১৫টি প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ। এসব প্রতিষ্ঠানকে ১৫ দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
নোটিশ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ হচ্ছে- নগরীর কাজি ইলিয়াস এলাকার রয়েল হসপিটাল এন্ড রিসার্চ সেন্টার, দরগাগেইট এলাকার মহানগর হাসপাতাল ও লাইফ কেয়ার পলিক্লিনিক, লামাবাজারের আয়েশা মেডিকেয়ার, পাঠানটুলার বিএভিএস হাসপাতাল, দক্ষিণ কাজলশাহ’র গ্রামীণ হাসপাতাল, ওসমানী মেডিকেল রোডের মেডিচেক প্যাথলজি সেন্টার ও সিলেট সিটি ডেন্টাল এক্সরে, স্টেডিয়াম মার্কেটের পারফেক্ট ডিজিটাল ল্যাব, সেবা ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মেডিল্যাব সার্ভিসেস আধুনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও অ্যাপোলো ডায়াগনস্টিক সেন্টার, রিকাবীবাজারের সিলেট ডিজিটাল ডেন্টাল এক্সরে, মেরী স্টোপস ক্লিনিক এবং মধুশহীদ এলাকার গ্রীণ লাইফ ব্ল্যাড ব্যাংক। সম্প্রতি এসব প্রতিষ্ঠানকে নোটিশ দেয়া হয়।
স্বাস্থ্য বিভাগ, সিলেট-এর পরিচালক সুলতানা রাজিয়া স্বাক্ষরিত কারণ দর্শানো নোটিশে বলা হয়, ‘টাস্কফোর্সের সিদ্ধান্ত মোতাবেক দেশের সকল স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে ২৩ আগস্টের মধ্যে লাইসেন্স গ্রহণ ও নবায়নের নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু, আপনার প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এখন পর্যন্ত অনলাইনের মাধ্যমে নতুন লাইসেন্স/লাইসেন্স নবায়নের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেননি। সুতরাং, সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে কিভাবে এখন পর্যন্ত অনলাইনের মাধ্যমে আপনার বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন, এর উপযুক্ত কারণ ব্যাখ্যাসহ আগামী ১৫ দিনের মধ্যে অনলাইনের মাধ্যমে নতুন লাইসেন্স/লাইসেন্স নবায়নের জন্য রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করে এ দপ্তরকে অবহিত করতে অনুরোধ করা হলো।’ অন্যথায় আপনার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
স্বাস্থ্য বিভাগ, সিলেট-এর সহকারী পরিচালক ডা: আনিসুর রহমান নোটিশ প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সিলেটের অলি-গলিতে অনেক ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব ডায়াগনস্টিক সেন্টারের তালিকা তৈরি করতে এরই মধ্যে সিলেট সিটি কর্পোরেশন এবং প্রাইভেট মেডিকেল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার ওনার্স এসোসিয়েশনের সাথে স্বাস্থ্য বিভাগের বৈঠক হয়েছে। আগামী শনিবারের মধ্যে এ ধরনের অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রস্তুত করা যাবে বলে জানান তিনি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিলেটে প্রায় দুই শতাধিক বৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: জাহিদুল ইসলাম জানান, নগরীতে যে সব ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার ঠিকমতো ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট (বর্জ্য ব্যবস্থাপনা) ঠিকমতো করছে ও কর্পোরেশন থেকে লাইসেন্স নিয়েছে-তাদের একটি তালিকা স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগই সবকিছু কম্পাইল করে লাইসেন্সবিহীন প্রতিষ্ঠানের তালিকা করছে। এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যে কোন ব্যবস্থা গ্রহণে স্বাস্থ্য বিভাগকে সিটি কর্পোরেশন সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত রয়েছে।

শেয়ার করুন